পাকিস্তান অতিদ্রুত উঠে আসবে এটা অনেকটা নিশ্চিত..

Sharing is caring!

 

ইমরান খানের গত ২ দিনের সৌদি ও আমিরাত সফরে কম করে হলেও ২০০ থেকে ৩০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ নিশ্চিত করা হয়েছে। পারভেজ মো্শারফ কে দিয়ে পাকিস্তানকে ধ্বংসের কিনারে নিয়ে গিয়েছিল আমেরিকা কিন্তু এবোটাবাদের বাসায় ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করার ৬ মাসের মধ্যে আমেরিকাকে সমুলে বিতাড়িত করে পাকিস্তানের ভুমি থেকে পাক সেনারা। পশ্চিমারা পাকিস্তানে ঠিকতে না পেরে শেষ পর্যন্ত মালাল নাটক সাজিয়ে গুটি কয়েক যা ছিল সবাই মালালাকে নিয়ে পালিয়ে গেছে পাকিস্তানের মাটি থেকে।

পাক সেনাবাহিনী এখন পাকিস্তানের অর্থনীতিকে ঢেলে সাজাচ্ছে। যার অংশ ইমরান খানের গত ২ দিনের সৌদি-আমিরাত সফর। পাকিস্তানের ২১ কোটি জনবল ও বিশাল উর্ভর ভুমি রয়েছে।লন্ডনের মেয়র সহ বৃটেন শাসন করার মত অনেক নেতা ইতিমধ্যে বৃটেনে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করেছে। পাকিস্তানের রয়েছে এক ঝাক মেধাবী, যারা ইতিমধ্যে শক্তিশালী পারমানবিক বোমা, JF -17 Thunder যুদ্ধ বিমান ও শক্তিশালী ড্রোন নিমান করে বিশ্বদরবারে নিজেদের পরিচিত নিশ্চিত করেছে। চীনের অর্থায়নে বর্তমানে গৌদার পোটারে নির্মান কাজ এগিয়ে চলেছে। হয়তো আমরা আগামী ৫ বছরের মধ্যে তুর্কির মত এক শক্তিশালী পাকিস্তান দেখতে পাব এতে কোন সন্দেহ নেই। তুর্কিকে নেতৃত্ব দিয়েছে এক এরদুগান আর পাকিস্তানকে নেতৃত্বে দিচ্ছে শক্তিশালী সেনাবাহিনী। এরদুগান ১৫ বছর পুর্বে তুর্কি উন্নয়নের কাজে হাত দিয়ে ১০ বছর পরে তথা ২০১২/১৩ সাল থেকে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করেছে।যদিও আজ পরিপুর্ন শক্তিধর। এবোটাবাদের লাদেন হত্যাকান্ডের পর আমেরিকান এজেন্টদের সমুলে বিতাড়িত করে ২০১০/১২ সাল থেকে পাকিস্তান গড়ার কাজে হাত দিয়েছে পাক সেনাবাহিনী।বর্তমানে রাষ্ট্রের স্তিতিশীলতা নিশ্চিত করেছে, ইমরান খানকে ক্ষমতায় বসিয়ে বিশ্বকে জানান দিয়েছে তারা শ্রীঘ্রই শীর্ষের কাতারে উঠে আসছে।

পাকিস্তান অর্তনীতিতে আগামী ৫ বছরে সৌদিকে ছাড়িয়ে এক ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি হবে। এটা আমার একার কথা নয় সকল বিশ্বেষকদের একই মত। শুধুমাত্র গৌদার পোর্টের যাত্রা শুরু হলেই পাকিস্তানীরা নতুন এক অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তিধর জাতি হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করবে।

Facebook Comments
shares